আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা, নিরব প্রশাসন

মাসুম লুমেনমাসুম লুমেন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০২:৫৫ PM, ০১ মে ২০২১

গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের চৌরাস্তা বাজারে আদালতের ১৪৪ ধারা জারি করা ১৩ শতক একটি জমি কতিপয় ব্যক্তি জোরপূর্বক দখল করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী একটি পরিবার।

ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, শান্তি শৃঙ্খলা বজায় ও সেই জমিতে কোন ধরনের স্থাপনা নির্মাণ করা যাবেনা মর্মে গাইবান্ধা আদালত ছয়মাসে পরপর দুইবার সুন্দরগঞ্জ থানাকে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। সেইসাথে এসিল্যান্ড সুন্দরগঞ্জকে আবাদি জমিটি সরেজমিন তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত। প্রথম নির্দেশের পর দখলবাজ চক্রটি (মমিনুর ও রহমান গং) আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জমিটি টিন দিয়ে ঘেরার চক্রান্ত করে। এসময় সুন্দরগঞ্জ থানা ও ধুপনী ফারি থানায় মুঠোফোনে অভিযোগ দিলে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ দখলবাজ চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করে। পরে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করার অপরাধে মামলা দিয়ে চার আসামিকে আদালতে পাঠায় পুলিশ। আসামিরা আদালত থেকে বের হয়ে দখলের চেষ্টা করলে আবারও ধুপনি থানাকে অবগত করা হয়। কিন্তু রহস্যজনকভাবে পুলিশ কোন পদক্ষেপ না নিলে আবারও বিজ্ঞ আদালতের নিকট উক্ত জমি দখল কিংবা কোন স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ চেয়ে ১৪৪/৪৫ ধারায় আবেদন করা হয়। কিন্তু এবারও আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ওই আবাদি জমিট জবর দখলের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে চক্রটি।

তারা আরও জানান, চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি সকাল ৮টা ৩০ মিনিটের দিকে উক্ত জমিতে অনাধিকার প্রবেশ করে জোরপূর্বক দখলের চেষ্টা চালায়। এমতাবস্থায় বাবু বাদী হয়ে মমিনুর ও রহমানের নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনকে আসামী করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একট অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ধুপনি থানার এসআই হারুন পরেরদিন ৩১ জানুয়ারি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং রহমান গংদেরকে বিরোধপূর্ণ ভুমিতে আদালতের আদেশ ছাড়া কোন ধরনের কাজ না করার জন্য নির্দেশ দেন। কিন্তু পুলিশের নিষেধ অমান্য করে রাতের আঁধারে রহমান গংরা উক্ত জমি দখলের পায়তারা করছে। এ ব্যাপারে রঞ্জু মিয়া, ও বাবু মিয়া তাদের পৈত্রিক ও বাড়ি করার জন্য ক্রয়কৃত ১৩ শতক জমি জবর দখলের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :