Tista Express Logo
ঢাকামঙ্গলবার , ৩১ আগস্ট ২০২১
  1. Active
  2. অন্যান্য
  3. অপরাধ
  4. অর্থনীতি
  5. আইন-আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. করোনাভাইরাস
  9. কৃষি ও প্রকৃতি
  10. ক্যাম্পাস
  11. খেলাধুলা
  12. গণমাধ্যম
  13. জবস
  14. জাতীয়
  15. জেলা/উপজেলা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাশের দাবিতে বিজিবির বিরুদ্ধে স্বজনের বিক্ষোভ !

এবি সিদ্দিক, স্টাফ রিপোর্টার
আগস্ট ৩১, ২০২১ ১১:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রোববার (২৯ আগস্ট) ভোরে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর বিএসএফের গুলিতে লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম বুড়িমারী ধরলা নদীর বাঁধ এলাকায় ইউনুছ ও সাগর রায় নামে দুই যুবক নিহত হন।

নিহতদের লাশের দাবীতে আজ মঙ্গলবার দুপুর পৌনে দুইটা থেকে শোয়া তিনটা পর্যন্ত প্রায় ৩০ মিনিট বুড়িমারী স্থলবন্দর বিজিবি চেকপোস্ট অবরোধ করা হয়। নিহত ব্যক্তিদের স্বজন, পিতা-মাতা এবং স্ত্রী সন্তানসহ স্থানীয়রা চেকপোস্টে অবস্থান নিয়ে লাশ ফেরত চেয়ে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকেন।

বুড়িমারী স্থলবন্দর জিরো পয়েন্টে এ সময় স্বজনরা লাশ ফেরত পাওয়ার আশায় বিজিবি’র চেকপোস্ট ঘেরাও করেন।
এতে বন্দরের ব্যবসা বাণিজ্যের গাড়ী চলাচলে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়।

এ সময় জিরো পয়েন্ট সড়কে পণ্যবাহী প্রায় ৩০- ৪০ টি ট্রাক আটকা পড়ে। বুড়িমারী স্থলবন্দর সড়কের দুই পাশে প্রায় দুই শতাধিক পণ্যবাহী ও খালি ট্রাক আটকে গেলে যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে দুই দফায় পুলিশ গিয়ে অবরোধকারীদেরকে সান্তনা দেন। লাশ ফিরে পাওয়ার আশ্বাস দিয়ে অবরোধ তোলার ব্যবস্থা করেন।

পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক বলেন, বিএসএফের গুলিতে নিহতদের স্বজনরা বুড়িমারী স্থলবন্দর বিজিবি চেকপোস্ট অবরোধ করে অবস্থান নিয়েছে খবর পেয়ে বুড়িমারী স্থলবন্দর ফাঁড়ি পুলিশ গিয়ে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে।
এরপর পাটগ্রাম থানার পুলিশের নেতৃত্বে সেখানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয়।

তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ২৯ আগস্ট ভোরে বুড়িমারী ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের বুলবুল হোসেনের ছেলে ইউনুছ আলী (৩০ ) ও নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার ধনবর রায়ের ছেলে জগন্নাথ রায় সাগর (৩২) গুলিতে নিহত হয়। নিহত ব্যক্তিদের স্ত্রী সন্তান পিতা মাতাসহ স্থানীয়রা লাশের জন্য বুড়িমারী স্থলবন্দরে গত দুই দিন ধরে পড়ে আছেন। বিজিবি ক্যাম্পে গেলে তারা সঠিক কোনো খবর না বলায় বুড়িমারী স্থলবন্দর বিজিবি চেকপোস্ট অবরোধ করে প্রতিবাদ করেন।

নিহত ইউনুস আলীর পিতা বুলবুল ইসলাম বলেন, ‘আমি বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাতসহ বুড়িমারী বিজিবি কোম্পানি কমান্ডারকে সীমান্তে আমার ছেলে হত্যা ও লাশ নেওয়ার জন্য ২৯ আগস্ট রোববার আবেদন দিতে গেলে তা গ্রহণ করা হয়নি। এরপর সোমবার (৩০ আগস্ট) বিকেলে আবেদন নেন।

মঙ্গলবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আছি লাশ পাব কি’না এ ব্যাপারে কথা বললে বিজিবি’র পক্ষ থেকে বলা হয়, উপর থেকে আদেশ না হলে কিছু বলতে পারবে না।

নিহত জগন্নাথ রায় সাগরের স্ত্রী শামলী রানী বলেন, আমার স্বামীর লাশ ফেরত চাই।
না হলে এখানে জীবন দিব।
জগন্নাথ রায়ের পিতা ধনবর রায় বলেন, ছেলের মুখ দেখার জন্য পরে আছি। কেউ আমাদের কথা শোনে না।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ৬১ (বিজিবি) বুড়িমারী কোম্পানি কমান্ডার বেলাল হোসেন বলেন, গুলিতে দুইজন বাংলাদেশি নিহতের ব্যাপারে বিএসএফ খবর জানায়। নিহতদের পরিবার থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ থেকে নির্দেশনা আসলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।