গাইবান্ধায় আশ্রয় কেন্দ্র উদ্ধোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

মাসুম লুমেনমাসুম লুমেন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:১১ PM, ২৩ মে ২০২১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বন্যা কালীন সময়ে নিচু অঞ্চলের মানুষ ও গৃহপালিত পশুকে নিরাপত্তা দিতে সারাদেশের ন্যায় গাইবান্ধাতেও আশ্রয় কেন্দ্র উদ্ভোধন করেছেন।

রবিবার (২৩ মে) ১২টার দিকে গণভবন থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে সাদুল্যাপুর উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নের ইদ্রাকপুরে তিনতলা বিশিষ্ট আশ্রয় কেন্দ্রটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

এ-সময় সাদুল্লাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নবীনেওয়াজের সঞ্চালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপলেলাবসীর পক্ষ থেকে সালাম জানিয়ে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার এ্যাড ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি ও গাইবান্ধা-৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড উম্মে কুলসুম স্মৃতিসহ জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ফরহাদ আব্দুল্যাহ হারুন ও সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক-সাদুল্লাপুর উপজেলার আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া খন্দকার ও সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান সাহারিয়া খান বিপ্লব এছাড়া অনুষ্ঠানে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার-জেলা-উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা বিভিন্ন উপজেলার ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং ‘আ’লীগের অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদকর্মীদের উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী সুবিধাভোগী শান্তনা বেগমের সঙ্গে কথা বলে সাদুল্লাপুর উপজেলার বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রের উদ্ভোধনকে প্রাণবন্ত করে তোলেন।

জানাযায়, উন্নত সেড ও সামনে ফুলের বাগানে ইদ্রাকপুর বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র ও উচ্চ বিদ্যালয়ের অত্যাধুনিক একাডেমি ভবন নির্মাণে মোট ৩ কোটি ১৬ লক্ষ ৪৩ হাজার ৭’শত ৬৮ টাকা ব্যায়ে নির্মাণ কাজ সহ যাবতীয় কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে। তিন তলা বিশিষ্ট বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণের ফলে বন্যা কবলিত এই এলাকার মানুষের জানমালের নিরাপত্তা একধাপ এগিয়ে গেলো বলে মনে করে সাদুল্লাপুরবাসী। আশ্রয় কেন্দ্রটিতে ৪’শ জন বানভাসি মানুষ, ১’শ টি গবাদি পশু রক্ষার পাশাপাশি অন্য সময় শিক্ষার্থীরা উন্নত ও মনোরম পরিবেশে শিক্ষা অর্জনের সুযোগ পাবে।

উল্লেখ্য, মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে এদিন দেশের উপকূলীয় জেলাগুলোতে ১১০টি বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, ৩০টি বন্যা আশ্রয়কেন্দ্র, ৩০টি জেলা ত্রাণ গুদাম-কাম-দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা তথ্যকেন্দ্র ও পাঁচটি মুজিব কিল্লার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি একইসঙ্গে ৫০টি মুজিব কিল্লার ভিত্তিপ্রস্তরও স্থাপন করেন।

আপনার মতামত লিখুন :